• শিরোনাম

    স্ত্রী-সন্তানের অধিকার পেতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন মা ও তিন মেয়ে

    নরসিংদীর মনোহরদীতে খন্দকার আশরাফ উদ্দিন | সোমবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২ | পড়া হয়েছে 45 বার

    স্ত্রী-সন্তানের অধিকার পেতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন মা ও তিন মেয়ে

    apps

    ওরফে বাচ্চু মিয়ার বিরুদ্ধে স্ত্রী ও তিন সন্তানকে শারীরিক নির্যাতন করাসহ ভরণপোষণ না দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে বিগত বছরে মনোহরদী থানা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও শেষে আদালতের দারস্ত হন স্ত্রী শেলিনা বেগম। বর্তমানে তিন মেয়ের পড়াশোনার ও অন্যান্য খরচ মেটাতে না পেরে মানবেতর জীবন যাপন করছেন শেলিনা বেগম। অভিযোগে জানা যায়, ১৯৯৯ সালের ৬ আগষ্ট পারিবারিকভাবে ইসলামি শরিয়া মোতাবেক বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন বাচ্চু ও শেলিনা। এরপর স্বামীর পৈতৃক ভিটা …. বিবাহের পর ওই দম্পতির তিনজন কণ্যাসন্তান জন্ম গ্রহণ করে। বিগত পাঁচ বছর পূর্বে প্রথম স্ত্রীকে না জানিয়ে গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে করেন বাচ্চু। তারপর হতেই অত্যাচার নির্যাতন শুরু হয় শেলিনার উপর এবং যৌতুক দাবীতে চাপ সৃষ্টি করে বাচ্চু। এরই মধ্যে শেলিনা তার নিজ অর্থে মনোহরদী পৌর সদরে জমি ক্রয় করে তাতে বসতবাড়ি নির্মাণ করে স্বামী সন্তান নিয়ে বসবাস করতে থাকেন। কিন্তু লোভী স্বামীর কথায় যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রী-সন্তান রেখে মনোহরদী হতে চলে যায় এবং সকল প্রকার যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। এমতাবস্থায় স্বামীর সাথে যোগাযোগ করতে না পাড়া ও সন্তানদের ভরণ-পোষণের খরচ মেটাতে না পেরে স্বামীর পৈতৃক বাড়ীতে গেলে মারধরের স্বীকার হন শেলিনা। অনেকবার স্ত্রী ও সন্তানের অধিকার নিয়ে খন্দকার আশরাফ উদ্দিন ওরফে বাচ্চুর নিকট গেলেও তাদের মারধর করে তাড়িয়ে দেয়া হয় বলে জানান সেলিনা খাতুন। বর্তমানে তাদের প্রাণনাশের হুমকিও দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগে বলা হয়েছে। তবে, খন্দকার আশরাফ উদ্দিন ওরফে বাচ্চু বলেন,,,,, শেলিনা খাতুন বলেন, স্ত্রী ও আমার সন্তানদের অধিকার পেতে বহুদিন ধরে থানা ও ইউএনওর দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি। কিন্তু কোনো প্রতিকার পাচ্ছি না। আমি এর ন্যায় বিচার চাই। আমি এবং আমার সন্তান অধিকার ফিরে পেতে চাই।’ এ বিষয়ে মনোহরদী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জানান, অভিযোগ পেয়েছি বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

    বাংলাদেশ সময়: ৭:২৩ অপরাহ্ণ | সোমবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ