• শিরোনাম

    সিরাজগঞ্জে কলেজ ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু

    অনলাইন ডেস্ক | শনিবার, ১০ জুলাই ২০২১ | পড়া হয়েছে 68 বার

    সিরাজগঞ্জে কলেজ ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু
    apps

    টি.এম.এ হাসান, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:
    সিরাজগঞ্জে ১৮বছর বয়সী এক কলেজ ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (১০ জুলাই) বিকালে সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউনিয়নের নওদা ফুলকোচা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে যুবকের মরদেহটি উদ্ধার করা হয় বলে স্থানীয়রা জানান।

    নিহত আসিফ (১৮) নওদা ফুলকোচা গ্রামের মো. খাজাত আলীর ছেলে ও স্থানীয় বাগবাটি কারিগরি কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র। সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, মৃত আসিফ মানষিকভাবে একটু অস্বাভাবিক ছিল। মানুষজনের সাথে খুব বেশি কথা বলতোনা। তবে মৃত্যুর কারন সম্পর্কে কেওই নিশ্চিত করতে পারছেন না।

    তবে তার মায়ের দাবি ছেলে নেশার ও মোবাইল কেনার টাকা চেয়ে টাকা না পেয়ে আত্মহত্যা করেছে। তবে তার বক্তব্যের সাথে মিলছেনা ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা নিহতের ছোটভাই জুনায়েদ (৮) এর। এমনকি নিহতের মা ও ছোটভাই জুনায়েদের বক্তব্যের সঙ্গে মিলছেনা হাসান নামে প্রতিবেশী চাচারও। তিনি লাশ নামিয়েছেন বলে বক্তব্য ছোটভাইয়ের এবং ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলো বলে দাবি নিহতের মার। এমনকি স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানও বলতে পারছেন না মৃত্যুর সঠিক কারণ। যার কারনে মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে।

    নিহত আসিফের মা বলছেন, আমার কাছে নেশার ও মোবাইল কেনার জন্য টাকা চায়। কিন্তু আমি দিতে না চাইলে ঘরের আড়ার সঙ্গে আমার ওড়না ও ছোট ছেলের পাগরি দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। আমি নিজে তার গলার কাপড় দা দিয়ে কেটে লাশ নামিয়েছি বললেও তার ছোট ছেলে জুনায়েদ ও পার্শ্ববর্তী হাসানের বক্তব্য তার বক্তব্যের সঙ্গে মেলেনি।

    নিহতের ছোটভাই প্রত্যক্ষদর্শী জুনায়েদ জানায়, একটু আগেই আমি আর হাসান চাচা এখান থেকে গিয়েছি। পরে আমি এসে দেখি আসিফ ভাই ঝুলে আছে। এসময় মা ও হাসান চাচা এসে হাসান চাচা ভাইকে ফাঁসের কাপড় কেটে নিচে নামায়।

    অন্যদিকে সেই হাসান বলছেন ভিন্ন কথা, তিনি প্রথমে বলেন, আমি কাপড়ের গিট খুলে তাকে নিচে নামাই। আবার পরবর্তীতে বলেন, আমি আসিফকে জড়িয়ে ধরে উচু করি ও তার মা কাপড় কেটে নিচে নামায়। তাদের তিনজনের বক্তব্যের মাঝে একটা ফারাক লক্ষ্য করা যায়।

    স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. নুরুল ইসলাম বলেন, ঘটনা শোনার পরে আপনাদের সাথেই আমি এই বাড়িতে আসলাম। মৃত্যুর সঠিক কারণ বলতে পারবোনা।

    এ বিষয়ে ছোনগাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শহিদুল আলম বলেন, একটি ছেলে মা’র সঙ্গে অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে শুনেছি। এর বেশিকিছু আমি জানিনা।

    সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) গোলাম মোস্তাফা  বলেন, আমরা মৃতের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাচ্ছি। গিয়ে সুরুতহাল ও তদন্ত করে বিস্তারিত বলা যাবে। এবং সেই অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

     

    বাংলাদেশ সময়: ১০:১৬ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১০ জুলাই ২০২১

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ