• শিরোনাম

    শরীয়তপুরে ২০ টি বাড়ী ঘর হামলা,ভাংচুর, লুটপাট, ১০ টি পরিবার অবরুদ্ধ, আহত ২০ জন

    শরীয়তপুর প্রতিনিধি ॥ | শুক্রবার, ১৭ জুন ২০২২ | পড়া হয়েছে 56 বার

    শরীয়তপুরে ২০ টি বাড়ী ঘর হামলা,ভাংচুর, লুটপাট, ১০ টি পরিবার অবরুদ্ধ, আহত ২০ জন
    apps

    শরীয়তপুরের সদর উপজেলার চিতলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থক ও বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে পালটাপাল্টি হামলার ঘটনায় ২০ টি বাড়ী ঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ভাংচুর ও লুট পাট। ১০টি পরিবারকে অবরুদ্ধ করে রাখার অভিযোগ ঊঠেছে বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের বিরুদ্ধে। হামলার সময় অন্ততঃ ২০ জন মারাত্নক আহত হয়েছে। আহতদেকে বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় এখন ও কোন মামলা হয়নি। বিচারের দাবীতে এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও তার সমর্থকরা। এলাকায় উত্তেজনা জনা বিরাজ করছে। এদিকে পুলিশ বলছে দুগ্রুপকে মুখোমুখি হতে দিচ্ছে না।
    পুলিশ ও চিতলিয়া ইউনিয়ন পরিষদেও মেম্বার সফিকুল ইসলাম ও বীমা কর্মী ফেরদাউস সরদার ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, শরীয়তপুর সদও উপজেলার চিতলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ,ও সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম হাওলাদার (আনারস) ও শরীয়তপুর সদও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি হারুন অর রশিদ হাওলাদার (ঘাড়া) মাকা নিয়ে নির্বাচন করেন । সেখানে আব্দুস সালাম হাওলাদার বিজয়ী হন। বিজয়ী হওয়ার পর থেকে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীও সমর্থক ৮ নং ওয়ার্ডেও চিতলিয়া পশ্চিম পাড় এলাকায় স্থানীয় আওয়ামীলীগের কার্যালয়, তাজুল সরদারের ২টি , নাছির হাওলাদারের ১ টি , জিয়াঊল খার ১টি, আজিজুল বেপারীর ১টি ও বোরহান চৌকিদারের ১ টি ঘর ও সলিশ মল্লিক,হানিফ হাওলাদার ও শাজাহান সরদারের কাপড়েরর দোকান ,মোশারফের চায়ের দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। এ সময় বিজয়ী চেয়াম্যান প্রার্থীর সমর্থকদেও হামলায় মোঃ জাহিদ হোসেন (১২), করিম মিয়া (৩০),লিয়াকত (৪০), পুতুল আক্তার (২০)সহ ১০ জন আহত হয়েছে । আহত দেও বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। বিজয়ী চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম হাওলাদারের সমর্থকরা ্ একই গ্রামের জয়নাল মোল্লা,ফজল হক মোল্লা, মোক্তার মোল্লা,নাছির হাওলাদার , হায়দার খা, সায়েদ খাসহ ১০ টি পরিবার কে অবরুদ্ধ কওে রাখে । বিচারের দাবীতে এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও তার সমর্থকরা।
    অপর দিকে আজ শুক্রবার দুপুরে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকরা চিতলিয়া মোল্লা বাড়ীর মোড়ে বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদেও উপর হামলা চালিয়ে হানিফ সরদার (৩০),ইমাম হোসেন সরদার (৪০),ওসমান ঢালী (৩৮), কামাল হাওলাদার (৩৫), আয়ন হাওলাদার (৪০), রাশেদ হাওলাদার (৪০), ছোহরাব হাওলাদার (৫০) ,সাওন হাওলাদার (৩০) কে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
    শরীয়তপুর সদও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি পরাজিত চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ হাওলাদার বলেন , আমরা কোন হামলা করিনি । বরং আমার সমর্থকদেও বাড়ী ঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ভাংচুর লুট পাট ও অবরুদ্ধ কওে রাখে । অনেকে আমার বাড়ীতে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এ বিষয়ে পুলিশ কে অবহিত করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি । এর প্রতিবাদে আমরা বিক্ষোভ মিছিল করেছি।
    চিতলিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম পাড় এলাকার কাকলী আক্তার, সায়েদ খান বলেন নির্বাচনের ফল ঘোষনার পর থেকে বিজয়ী চেয়ারম্যান সালাম হাওলাদারের লোকজন মোঃ আলী সরদার, নান্নু খা,লিটন খা গংরা আমাদের কে অবরুদ্ধ করে রেখেছে। আমরা ঘর থেকে বের হতে পারছি না। বাড়ী থেকে আমার চাচাতো ভাই জাহিদখান বের হলে তাকেই মারধর করে।
    ব্যাবসায়ী সলিম মল্লিক ও হানিফ হাওলাদার বলেন, আমরা নির্বাচনে হারুন হাওলাদারের সমথন করায় নির্বচনের পড়ে সালাম হাওলাদারের সমর্থক রা আমাদেও ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ভাংচুর ও লুটপাট করেছে।
    হামলা ভাংচুরের কথা অস্বীকার করে বিজয়ী চেয়ারম্যান আব্দুছ সালাম হাওলাদার বলেন, মোল্লা বাড়ীর মোড়ে আমার সমর্থকদেও কুপিয়ে ও পিটিয়ে ১০ জন কে মারাত্নক আহত করেছে। হিন্দু পাড়া এলাকায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে দিচ্ছে না হারুন হাওলাদারের লোকজন ।
    পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আক্তার হোসেন বলেন, উত্তেজিত দু গ্রুপ কে মুখোমুখি হতে দেইনি। তবে বিছিন্ন ঘটনা ঘটতে পারে। এখন ও কেউ মামলা করতে আসেনি ।

    বাংলাদেশ সময়: ৭:৩১ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ১৭ জুন ২০২২

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ