• শিরোনাম

    শরীয়তপুরের গোসাইরহাট ইদিলপুর ইউনিয়ন পরিষদ বরখাস্ত হওয়ার পরও দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে গড়িমসির অভিযোগ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে,

    মিজানুর রহমান, শরীয়তপুর প্রতিনিধি  | সোমবার, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | পড়া হয়েছে 17 বার

    শরীয়তপুরের গোসাইরহাট ইদিলপুর ইউনিয়ন পরিষদ বরখাস্ত হওয়ার পরও দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে গড়িমসির অভিযোগ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে,

    apps

    মেম্বারগণসহ স্থানীয়রা ক্ষুদ্ধ

    গোসাইরহাট উপজেলার ইদিলপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ দেলোয়ার হোসেন শিকারীকে বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগে
    স্বীয় পদ থেকে বরখাস্ত করার ২০দিন পরও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেননি বলে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে
    ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ ফয়েজ আহমেদ গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট মৌখিক অভিযোগ করেছেন।
    এদিকে গত ২০ দিনেও দায়িত্ব বুঝিয়ে না দেয়ায় উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারগণসহ স্থানীয়রা ক্ষুদ্ধ হয়েছেন। গোসাইরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আউয়াল সরদার ও ইউনিয়ন পরিষদ অফিস সূত্রে জানা
    গেছে, পরিষদের প্রকল্প গ্রহণের পূর্বে কোন সভা না করা, এলজিএসপি প্রকল্প গ্রহণকালে উপকার ভোগীদের নিয়ে সভা করার বিধান থাকলেও সভা না করা, প্রকল্পের কাজ ঠিকাদারের মাধ্যমে না করে আত্মীয়ের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কাজ করা এবং২০২১-২০২২ ভিজিডি চক্রে ইউনিয়ন কমিটি কর্তৃক যাচাই-বাছাইপূর্বক অনুমোদিত ২৪০টি কার্ডের অনুমোদিত
    তালিকার বাইরে ১২৫টি কার্ড অন্তর্ভুক্ত করাসহ নানা দুর্নীতিরঅভিযোগে স্থানীয় সরকার বিভাগ কর্তৃক তাকে ১৮ আগস্ট স্বীয়
    পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এরপর ওই ইউনিয়ন পরিষদেরভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পান প্যানেল চেয়ারম্যানমোঃ ফয়েজ আহমেদ। কিন্তু তাকে গত ২০দিনও গোডাউনেরচাবিসহ অন্যান্য কাগজপত্র বুঝিয়ে দেয়া হয়নি। এ বিষয়েভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ ফয়েজ আহমেদ আজ সোমবার দুপুরে গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট মৌখিক
    অভিযোগ করেছেন। আর দায়িত্ব বুঝিয়ে না দেয়ায় উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারগণসহ স্থানীয়রা ক্ষুদ্ধ হয়েছেন।
    পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান মিন্টু বেপারী, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নুরুজ্জামান মৃধা বলেন, ভিজিডি কার্ড, প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ড, বয়স্কভাতা কার্ড করার জন্য ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ার শিকারী মাথা পিছু ৫ থেকে ৬
    হাজার টাকা করে আদায় করেছেন। ইদিলপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জাকির হোসেন হাওলাদার বলেন, বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন শিকারী গোসাইরহাট থানা বিএনপি’র সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। তাই অফিসকক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি টানানোর এবং জাতীয় পতাকা উত্তোলনের বিধান থাকলেও চেয়ারম্যান বরাবরই তা এড়িয়ে গেছেন। ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান ঘরামী, বাদল বেপারী, মোর্শেদা বেগম অভিযোগ করেন, ইউনিয়ন পরিষদের গাছ এবং রাস্তার পাশের গাছ কেটে নিজের ঘরের ফার্নিচার তৈরি করেছেন। অফিসের
    টিভি, ল্যাপটপ ও চেয়ার বাড়িতে নিয়ে গেছেন। চেয়ারম্যান সাহেব আমাদের কোন মুল্যায়ন করতেন না। ইউপি সচিব আশ্রাফুল ইসলাম জুয়েল বলেন, আমি বার বার ফোন দেয়ার পরও চেয়ারম্যান গোডাউনের চাবিসহ প্রয়োজনীয়কাগজপত্র বুঝিয়ে দেননি। সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন শিকারী বলেন, আমি কেন তাকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেব? দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া আমার কোন কাজ নয়। দায়িত্ব বুঝিয়ে দিবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আলমগীর হোসাইন বলেন, গোডাউনের চাবিসহ যাবতীয় কাগজপত্র উক্ত ইউনিয়নের সচিব বুঝিয়ে দিবে।

    বাংলাদেশ সময়: ৪:৫১ অপরাহ্ণ | সোমবার, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ