• শিরোনাম

    ময়মনসিংহে পাওনা টাকার জন্য আগুন লাগানো হয় হকার্স মার্কেটে, রহস্য উদঘাটন করলো পুলিশ

    স্টাফ রিপোর্টার : | শনিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২২ | পড়া হয়েছে 29 বার

    ময়মনসিংহে পাওনা টাকার জন্য আগুন লাগানো হয়  হকার্স মার্কেটে, রহস্য উদঘাটন করলো পুলিশ
    apps

    প্রায় ২৮ দিন পর ময়মনসিংহ নগরীর হকার্স মার্কেটে আগুন লাগার ঘটনার রহস্য উদঘাটন করেছে কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ। গত ২২শে অক্টোবর সকাল ০৮.৩০ ঘটিকার সময় হকার্স মার্কেটে ঢুকে পেট্রোল ছিটিয়ে দিয়াশলাইয়ের কাঠি দিয়ে আগুন ধরিয়ে চলে যায় সনাক্তকারী ব্যক্তি। পরবর্তীতে কোতোয়ালী থানা পুলিশ হকার্স মার্কেটের সকল সিসি ক্যামেরা, ভিডিও ফুটেজ পর্যবেক্ষন করে প্রায় ২৮দিন উক্ত আসামীকে সনাক্ত করে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। মার্কেটের মহসিন টেইলার্সের দোকানের ট্টেইলার দর্জি হেলাল হোসেন বিপ্লব ওরফে বাবু বেতনের পাওনা টাকা না দেওয়ায় জিদ করে দোকানে আগুন লাগিয়েছে বলেও প্রেস ব্রিফিং এ জানিয়েছে কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ ।

    শনিবার (১৯ নভেম্বর) বেলা ১২ টায় ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার কনফারেন্স হলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর (সার্কেল) শাহিনুর ইসলাম ফকির ও কোতোয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শাহ কামাল আকন্দ।

    পুলিশ সুপার বলেন, মহসিন টেইলার্সের দোকানে কাজ করতো আসামী হেলাল হোসেন বিপ্লব ওরফে বাবু, বেতনের পাওনা টাকা না দেওয়ায় জিদ করে দোকানে আগুন লাগানো হয় বলে জানান। তিনি আরো বলেন,
    আসামী অন্য আরেকটি মামলায় কারাগারে আটক ছিল পরে সিসি টিভি ফুটেজ দেখে আসামীকে সনাক্ত করা হয়। মামলা সূত্রে জানা যায় গত ৮ নভেম্বর ২০২২ কোতোয়ালী মডেল থানার মামলা নং-৩৮, ধারা ৪৪৭/৪২৭/৪৩৬/৩৪ পেনাল কোডা মামলায় হেলাল হোসেন বিপ্লব ওরফে বাবু (২৮) গ্রেফতার করা হয়। মামলা সূত্রে জানা যায় ময়মনসিংহ কোতোয়ালী থানাধীন হকার্স মার্কেটে গত ২২/১০/২০২২ তারিখ ভোরে আগুন লেগে বেশ কয়টি দোকান পুড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। মার্কেট এর আশপাশ এলাকায় মানুষের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয় জনগণ, ফায়ার সার্ভিস, জেলা পুলিশের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসলেও হকার্স মার্কেটের ১৩৭ ও ৬০নং মহসিন টেইলার্স নামক দোকান ঘর, ৫৯ ও ৬০নং বুলবুল মেলা নামক দোকান ঘর, ৫৮নং সামিয়া সুজ নামক দোকান ঘর, ঘটনাস্থল হকার্স মার্কেটের পাশেই থাকা কৃষি মেশিনারীজ মার্কেটের লাকী মেশিনারীজ ষ্টোর নামক দোকান ঘর এবং এস.এস এন্টারপ্রাইজ নামক দোকান ঘর সমূহ পুড়ে সর্বমোট ১,২৪,০০,০০০/- (এক কোটি চব্বিশ লক্ষ) টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। বর্নিত বিষয়ে থানায় প্রথমে জিডি এন্ট্রি হয়। উক্ত জিডির আলোকে আগুন লাগার সূত্র উদ্ঘাটন করতে মার্কেট সহ আশ পাশ এলাকার সকল সিসি ক্যামেরা পর্যবেক্ষণ করা হয়। দীর্ঘ পর্যবেক্ষণে দেখা যায় ঘটনার দিন অর্থাৎ ইং ২২/১০/২০২২ তারিখ ভোর ০৭.৩০ ঘটিকার সময় একজন ব্যক্তি হাতে ব্যাগ নিয়ে মার্কেটে প্রবেশ করে “মোহসিন টেইলার্সের সামনে পেট্রোল জাতীয় কিছু ঢেলে আগুন লাগানোর দৃশ্য দেখা যায়। উক্ত দৃশ্য মার্কেট এর ব্যবসায়ীদের দেখিয়ে দায়ী ব্যক্তি সনাক্ত করতে সক্ষম হয়। সনাক্তকৃত ঘটনায় জড়িত মূল আসামী হেলাল হোসেন বিপ্লব ওরফে বাবু (২৮) কে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বীকার করে হকার্স মার্কেটে মহসিন টেইলার্স নামক দোকানে ৩/৪ বছর যাবৎ সে কাজ করত। হকার্স মার্কেটে আগুন লাগানোর ঘটনার ১৫ দিন পূর্বে মহসিন টেইলার্স হতে তাকে পাওনা টাকা না দিয়ে বিদায় করা হয়। মহসিন টেইলার্স তার পরিবর্তে রাব্বী নামে একজনকে নিয়োগ করে। উক্ত আসামি তার পাওনা টাকা বার বার চেয়েও না পেয়ে ইং ২১/১০/২০২২ তারিখ রাতে আকুয়া বোর্ডঘর মোড়ে আরিফের দোকান হইতে ৩৫/- টাকার পেট্রোল ক্রয় করে প্লাষ্টিকের বোতলে নিয়ে ঘটনার দিন অর্থাৎ ইং ২২/১০/২০১২ তারিখ সকাল ০৮.৩০ ঘটিকার সময় হকার্স মার্কেটে ঢুকে পেট্রোল ছিটিয়ে দিয়াশলাইয়ের কাঠি দিয়ে আগুন ধরিয়ে সে চলে যায়। পরবর্তীতে কোতোয়ালী থানা পুলিশ হকার্স মার্কেটের সকল সিসি ক্যামেরা, ভিডিও ফুটেজ পর্যবেক্ষন করে উক্ত আসামীকে সনাক্ত করে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।
    কোতোয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি শাহ কামাল আকন্দের সভাপতিত্বে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিং এ অন্যান্যদের মাঝে ইন্সপেক্টর তদন্ত মোঃ ফারুক হোসেন,ইন্টেলিজেন্ট অফিসার সুমন চন্দ্র রায় প্রমূখ।

    বাংলাদেশ সময়: ৪:২৫ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২২

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ