• শিরোনাম

    ভোটকেন্দ্র থেকে চেয়ারম্যান ভোটের ব্যালট উধাও, এছাড়াও পাওয়া গেলো সিল মারা ব্যালট

    টি এম এ হাসান সিরাজগঞ্জ | বৃহস্পতিবার, ১১ নভেম্বর ২০২১ | পড়া হয়েছে 73 বার

    ভোটকেন্দ্র থেকে চেয়ারম্যান ভোটের ব্যালট উধাও, এছাড়াও পাওয়া গেলো সিল মারা ব্যালট
    apps

    জেলা প্রতিনিধি, সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার ৮ং পাঙ্গাসী ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ৫নং কেন্দ্র গ্রামপাঙ্গাসী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ৪নং বুথ থেকে অলৌকিকভাবে হারিয়ে গেছে চেয়ারম্যান ভোটের ব্যালট পেপার, কিন্তু এর মুরি রয়েছে পিজাইডিং অফিসারের নিকট। এবং ৩নং বুথ থেকে পাওয়া গেছে নৌকার সিল মারা ২৬টি ব্যালট। যেখানে সেই সিরিয়ালের ব্যালট পেপারের সদস্য ও সংরক্ষিত নারী সদস্য ভোটের ব্যালট পেপার রয়ে গেছে। কিন্তু এতবড় ঘটনা ঘটে গেলেও এর কোনও উত্তর নেই কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা পিজাইডিং অফিসার মো. ইউসুফ আলী ও সেই ৪নং বুথের দায়িত্বে থাকা সহকারী পিজাইডিং অফিসার চান্দাইকোনা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা মোছা. জলি খাতুন ও দুজন পোলিং এজেন্ট জাহাঙ্গীর আলম ও আশরাফুল ইসলাম এর। এছাড়াও পিজাইডিং অফিসার এর নিকট থেকে পাওয়া গেলো নৌকায় সিল মারা ২৬টি ব্যালট পেপার। সরেজমিনে ওই কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, ৪নং বুথে সদস্য ও সংরক্ষিত নারী সদস্য নির্বাচনের ব্যালট পেপার থাকলেও নেই চেয়ারম্যান নির্বাচনের ব্যালট পেপার। কিন্তু সেই ব্যালটের মুরি পিজাইডিং অফিসারের নিকট আছে বলে তিনি স্বীকার করলেও তা সাংবাদিকদের দেখাতে রাজি হননি তিনি। এবিষয়ে আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. আকবর হোসেন নির্বাচনের নানান অনিয়মের কথা উল্লেখ করে বলেন, আমি এসে দেখি একটা বুথের সব ব্যালটে সিল মারা ও আরেকটা বুথে চেয়ারম্যান প্রার্থীর কোনও ব্যালটই নাই। সেগুলো আগেই নৌকা প্রতীকে কেটে নেওয়া হয়েছে। তবে এবিষয়ে সেই বুথের দায়িত্বে থাকা চান্দাইকোনা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা সহকারী পিজাইডিং অফিসার মোছা জলি খাতুন এর সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করা হলেও তিনি এবিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি। কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা পিজাইডিং অফিসার এসকল ঘটনা স্বীকার করে বলেন, ৩নং বুথের সিল মারা ব্যালট গুলো এবং যে ব্যালট গুলো আগেই সিল মেরে শেষ করা হয়েছে সেগুলোর মুরি বই আমার কাছে আছে। তবে এসকল বিষয়ে কোনো বক্তব্য না দিয়ে এরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। এবিষয়ে কথা বলার জন্য ইউনিয়নের নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা প্রার্থী মো. রফিকুল ইসলাম নান্নুর মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও সাড়া মেলেনি। এবিষয়ে রায়গঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান বলেন, আমি পিজাইডিং অফিসারের সঙ্গে কথা বলেছি, তিনি জানিয়েছেন একটা ব্যালট বই কতিপয় দুষ্কৃতকারীরা ছিনিয়ে নিয়েছিল এবং আমি তা উদ্ধার হরে আমার হেফাজতে নিয়েছি। কিন্তু ইউপি সদস্যদের ব্যালট পেপার থাকলেও চেয়ারম্যান প্রার্থীর ব্যালট পেপার না থাকার বিষয়ে তিনি আমাকে কিছু জানাননি।

    বাংলাদেশ সময়: ৩:১৬ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ১১ নভেম্বর ২০২১

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ