• শিরোনাম

    বেলাব বিন্নাবাইদ ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হামলা ও লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে মানববন্ধন

    অনলাইন ডেস্ক | রবিবার, ০৩ জানুয়ারি ২০২১ | পড়া হয়েছে 257 বার

    বেলাব বিন্নাবাইদ ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হামলা ও লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে মানববন্ধন

    নিজস্ব প্রতিনিধি: নরসিংদীর বেলাবতে যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. কুদরত আলীর উপর হামলার প্রতিবাদে বিন্নাবাইদ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. গোলাম মোস্তফা গোলাপ মিয়ার বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা সংসদের একাংশ ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড। বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর) বিকেলে বেলাব উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন করা হয়।

    এ সময় হামলাকারী ইউপি চেয়ারম্যানের বিচার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বেলাব থানা অফিসার ইনচার্জের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ প্রদান করা হয়।

    মানবন্ধনের বক্তব্য রাখেন, বেলাব উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আ: ওহাব প্রধান, বিন্নাবাইদ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও শহীদ পরিবারের সন্তান মো. জহিরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান মো. সুজন মিয়া।

    অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ২৮ ডিসেম্বর দুপুরে চরবাঘবের লোহাজুরী কান্দা গ্রামের পিছনে বেলাব থানার একটি মামলার তদন্ত করছিলেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সদস্যরা। তদন্তের সময় স্বাক্ষী দেওয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তুফা গোলাপ মিয়া তার কয়েকজন সহযোগীকে নিয়ে যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. কুদরত আলীর উপর হামলা করেন। বর্তমানে তিনি বেলাব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

    লাল বার্তায় নাম থাকা ও বর্তমানে ভাতাপ্রাপ্ত আহত বীর মুক্তিযোদ্ধা কুদরত আলী জানান,  প্রায় ৩শতাধিক মানুষের সামেন আমাকে বিন্নাবাইদ ইউপি চেয়ারম্যান মো. গোলাম মোস্তফা গোলাপ মিয়া ও তার ছেলে বুকে দুটি ঘুষি ও লাথি মেরে মাটিতে ফেলে দেয়। তারপর এলাকাবাসী উত্তেজিত হলে  ইউপি চেয়ারম্যান দৌড়ে পালিয়ে যায়। আমি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছি। এখান থেকেও আমাকে বের করে দেয়ার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। আমি হামলাকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

    বেলাব উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আ: ওহাব প্রধান বলেন, আমরা মুক্তিযোদ্ধারা বারবার অপশক্তির হাতে লাঞ্ছিত হয়ে আসছি। আমাদের সহযোদ্ধা বীর মুক্তিযোদ্ধা কুদরত আলী ভাইয়ের উপর হামলার কথা শুনে সরাসরি আমি ছুটে যাই। সেখানে গিয়ে সাধারণ মানুষজনের কাছ থেকে জেনেছে উনার উপর মারপিট ও লাঞ্ছিতের ঘটনার কথা। আমি এ ঘটনার তিব্র নিন্দা করছি।

    অভিযুক্ত চেয়ারম্যান মো. গোলাম মোস্তফা গোলাপ মিয়ার ব্যবহৃত ০১৭১৫-৮৫৩৩০১ মোবাইল ফোনে আজ রোববার বিকেল ৪.৪১ মিনিটে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি।

     

    বাংলাদেশ সময়: ৪:৫৬ অপরাহ্ণ | রবিবার, ০৩ জানুয়ারি ২০২১

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ