• শিরোনাম

    বুড়িমারী স্থলবন্দরে শ্রমিক ও সর্দার গ্রুপের মাঝে সংঘর্ষ!সাংবাদিকসহ আহত-১২

    সাধন রায়, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: বুধবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩

    বুড়িমারী স্থলবন্দরে শ্রমিক ও সর্দার গ্রুপের মাঝে সংঘর্ষ!সাংবাদিকসহ আহত-১২

    apps

    লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দরে পাওনা টাকা নিয়ে সাধারণ শ্রমিকদের সাথে সর্দার পক্ষের সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষে, সাংবাদিকসহ অন্তত-১২ জন আহত হয়েছেন।এর মধ্যে গুরুতর আহত- ১০জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

    মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৩টায় এ ঘটনা ঘটে।ঐ সময়ে, স্থলবন্দর থেকে সব যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দুই পক্ষের উত্তেজনা থামাতে পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন আছে।

    সংঘর্ষে আহতরা হলেন, বুড়িমারীর কলাবাগান এলাকার বাসিন্দা আসাদুজ্জামান (২৫), পন্ডিতপাড়ার জামিয়াল (৫৬), তেলিপাড়ার মো. বাবুল (৪৫), ব্যাঙকান্দার ফাতানুর (৪০), মধ্য খিলাপুরের মো. নুরনবী (২৩), বামনদলের আলী হোসেন (২৫), কইল্লাটারির মো. সুমন (২০),টোসা শেখ (৪০), গুচ্ছগ্রামের শরিফ উদ্দিন (৩০)ও মনিজুল(২৩), লিটন (৩০)এবং এশিয়ান টিভির পাটগ্রাম প্রতিনিধি এম এ কামাল (৪০),কালবেলা পত্রিকার পাটগ্রাম উপজেলা প্রতিনিধি মিঠু মুরাদ।

    জানা গেছে,সাধারণ শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি নিয়ে শ্রমিক সর্দারদের বিরোধের জেরে সোমবার উত্তেজনা দেখা দেয়। এ নিয়ে মহাসড়ক অবরোধ করা হয়।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা( ইউএনও) ঘটনাস্থলে গিয়ে আগামী ১৬ সেপ্টেম্বরের পর বিষয়টি সুরাহার আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়।

    গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকেই আবারো উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। খবর পেয়ে ইউএনও নুরুল ইসলাম ঘটনাস্থলে গেলে দুপুর ১২টা থেকে তাকে উদ্ভিদ সংঘ নিরোধ অফিসে অবরোধ করে রাখা হয়।

    এ অবস্থায় বিকেল ৩টার দিকে উভয় পক্ষ লাঠিসোঠা সহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে সাংবাদিকসহ -১২ জন আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে সেখান থেকে-১০ জনকে পাঠানো হয় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

    সংঘর্ষের কারণে বুড়িমারী-পাটগ্রাম মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ আছে। সংঘর্ষ থামাতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ছুঁড়লেও মহাসড়কেই অবস্থান নিয়ে আছে উভয়পক্ষ। ঘটনাস্থলে বিজিবি ও পুলিশ মোতায়েন আছে।

    আহত শ্রমিকরা বলেন, পাওনা টাকা আদায়ে সর্দারের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছি। আমাদের শান্তিপূর্ণ অবস্থান কর্মসূচিতে পুলিশ বাধা দেয় এবং টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে, ১০-১২ শ্রমিক আহত হন।

    পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল কর্মকর্তা ডাক্তার নিরব জানান,আহতদের এখানে আসলে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।তার মধ্যে গুরুতর আহত কয়েকজনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে দুই-তিনজন ভর্তি আছেন।

    পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, পরিস্থিতি বর্তমানে অনেকটাই শান্ত। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন আছে।

    বাংলাদেশ সময়: ৫:০১ অপরাহ্ণ | বুধবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ