• শিরোনাম

    পদ্মায় দুই ফেরির সংঘর্ষ, নিহত-১ আহত- ৫০,১৫টি গাড়ী ক্ষতিগ্রস্থ

    মিজানুর রহমান, শরীয়তপুর প্রতিনিধি | রবিবার, ১৯ জুন ২০২২ | পড়া হয়েছে 33 বার

    পদ্মায় দুই ফেরির সংঘর্ষ, নিহত-১ আহত- ৫০,১৫টি গাড়ী ক্ষতিগ্রস্থ
    apps

    : মাঝিরকান্দি-শিমুলিয়া নৌরুটে মাঝিরকান্দি ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া একটি ফেরির সঙ্গে শিমুলিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে আসা অপর একটি ফেরির মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ফেরিতে থাকা এক পিকআপ ড্রাইভার নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৫০ জন বলে জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান। আজ রোববার ভোর সোয়া ৪ টার দিকে দিকে দুর্ঘটনাটি ঘটে। সংঘর্ষে দুটি ফেরিই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফেরিতে থাকা মোহাম্মদ খোকন শিকদার (৪০)নামের এক পিকআপ ড্রাইভার নিহত হয়েছে। তার বাড়ি ঝালকাঠি জেলায়। কাঠালিয়া উপজেলার চিংবাখালি গ্রামের হারুন শিকদারের ছেলে।
    বিআইডব্লিউটিসি শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. জামাল হোসেন ও নৌ-পুলিশের ইনর্চাজ জহিরুল ইসলাম ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, মাওয়ার শিমুলিয়া ঘাট থেকে বেগম রোকেয়া শরীয়তপুরের উদ্দ্যেশে ছেড়ে আসে জাজিরা পয়েন্টের কাছাকাছি পৌঁছালে অপর দিক মাঝিরকান্দি থেকে ছেড়ে যাওয়া ফেরি সুফিয়া কামালের সঙ্গে প্রচন্ড স্রোতের কারনে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় ফেরিতে থাকা এক পিকআপ ড্রাইভার গাড়ীর চাপায় খোকন শিকদার নামের একজন নিহত হয়েছে। এ সময দুই ফেরীতে থাকা শিলা বেগম(৪০), নয়ন মিয়া(২৫), জামাল শেখ(৩৫), জাহিদ মিয়া(২৬), জনি খান(৩৬), রফিক বেপারী (৫০), শিরাজ ঢালী (৩৯), হারুন খান(৪২), আলি ঘড়ামী(৫০), সুজন শিকদার( ৩০), আকাশ মিয়া(৩০), কাকলী বেগম(৩০), মনি বেগম(৪০),সহ ৫০ জন এ সময় ফেরিতে থাকা বাস ও অন্যন্য গাড়ী একটি অপরটি সঙ্গে সজোওে ধাক্কা লাগে এতে যাত্রীসহ ২০ জন আহত হয়েছে। ফেরী দুটি সহ ফেরীতে থাকা যানবাহন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আহতদের শরীয়তপুর ও মুন্সিগঞ্জের বিভিন্ন ক্লীনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
    জানা যায়, ফেরি সুফিয়া কামাল ৩০টি যানবাহন ৩ শতাধিক যাত্রী নিয়ে শরীয়তপুরের মাঝিঘাট থেকে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে যাচ্ছিল। একই নৌপথে ৩৪টি যানবাহন ও পাঁচ শতাধিক যাত্রী নিয়ে মাঝিঘাটের দিকে আসছিল ফেরি বেগম রোকেয়া। দু’টি ফেরি পদ্মা নদীর টার্নিং পয়েন্ট জাজিরা প্রান্তে চ্যানেলে পৌঁছালে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
    এতে ক্ষতিগ্রস্থ হয় দু’টি ফেরি সামনের অংশ। বিকল হয়ে যায় বেগম রোকেয়া ফেরির গাড়ি ওঠা-নামার র‌্যাম্প। এ ফেরিতে থাকা ২০/২৫টি গাড়ির ক্ষতি হয়। পরবর্তীতে সুফিয়া কামাল শিমুলিয়া ঘাটে ও বেগম রোকেয়া মাঝিঘাটে ঘাটে পৌঁছে নোঙ্গর করেছে। অন্যান্য যাত্রীরা নিরাপদ চলে গেছেন।

    সুফিয়া কামাল ফেরির মাস্টার মোহাম্মদ হাসান বলেন, নদীতে পানি বৃদ্ধির ফলে প্রচন্ড স্রোতে টার্নিংয়ে নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি। তবে যাত্রীরা জানিয়েছেন অবহেলার কারণেই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।
    মাওয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আবু তাহের বলেন, ফেরি দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তির মরদেহ মাওয়া নৌপুলিশ ক্যাম্পে রয়েছে। আইনি পক্রিয়া শেষে নিহতের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। তবে কোনো যাত্রী নিখোঁজ রয়েছে কি না এখনো নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

    ফেরী সুফিয়া কামালের যাত্রী রনি মিয়া ও মিজানুর রহমান বলেন, রোববার ভোর সোয়া ৪ টার দিকে হঠাৎ করেই বিকট শব্দের আওয়াজ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা গাড়ী থেকে ছিটকে পড়ে আহত হয়। পরে শুনি গাড়ীর চাপায় খোকন শিকদার নামের একজন নিহত হয়েছে।
    বিআইডব্লিউটিসি’র মেরিন ইঞ্জিনিয়ার আহমেদ আলী জানায়, ‘প্রতিদিনের মত যাত্রী ও যানবাহন নিয়ে একটি ফেরি শিমুলিয়া ঘাট থেকে মাঝিকান্দি যাচ্ছিলো। অপরদিকে অন্য একটি ফেরি মাঝিকান্দির ঘাট থেকে শিমুলিয়া যাচ্ছিল। এ সময় পদ্মা নদীর টার্নিং পয়েন্টে আসলে দুই ফেরির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ফেরি থাকা এক যাত্রী নিহত হয়েছে। তাৎক্ষনিক তার পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে তিনি একটি পিকআপের ড্রাইভার বলে জানা গেছে। সে সময় ফেরিতে থাকা যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে। এ ঘটনায় একজন নিহত ছাড়া তেমন কোন হতাহত হয়নি বলেও জানান তিনি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে বলেও জানান।

    বাংলাদেশ সময়: ১০:২০ অপরাহ্ণ | রবিবার, ১৯ জুন ২০২২

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ