• শিরোনাম

    চাঞ্চল্যকর সুজিত সুত্রধর হত্যার মূল হোতাসহ ০৩জন গ্রেফতার

     নরসিংদী থেকে খন্দকার আমির হোসেন : | বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন ২০২২ | পড়া হয়েছে 184 বার

    চাঞ্চল্যকর সুজিত সুত্রধর হত্যার মূল হোতাসহ ০৩জন গ্রেফতার
    apps

    গত ২২/০৬/২২ খ্রিঃ তারিখ অনুমান ১৯.৪৫ ঘটিকার সময় নরসিংদী মডেল থানাধীন হাজীপুর কাঠ বাজারে “সুজন টিম্বার ট্রের্ডাস এন্ড ফার্নিচার মার্ট” নামীয় দোকানে চাঞ্চল্যকর একটি হত্যা কান্ডের ঘটনা ঘটে। এ সংক্রান্তে প্রেস ব্রিফিং করেন পুলিশ সুপার, নরসিংদী কাজী আশরাফুল আজীম পিপিএম। স্থানীয় তদন্তে জানা যায় যে, ভিকটিম নরসিংদী মডেল থানাধীন হাজীপুর কাঠ বাজারে “সুজন টিম্বার ট্রের্ডাস এন্ড ফার্নিচার মার্ট” নামীয় দোকানের মালিক। তিনি দীর্ঘদিন যাবত ফার্নিচারের ব্যবসায় পরিচালনা করিয়া আসিতেছে। গত এক সপ্তাহ আগে ভিকটিমের দোকানে কর্মরত বার্নিশ মিস্ত্রী-মাসুম এর সাথে তাহার ছেলে সুজন সূত্রধর(৩০) এর কথা কাটাকাটি হয়। সুজন সূত্রধর বার্নিশ মিস্ত্রি মাসুমকে চর থাপ্পর মারে। এই ঘটনার ব্যাপারে বার্নিশ মিস্ত্রি মাসুম দোকানের মালিকের নিকট বিচার প্রার্থী হয়। দোকানের মালিক সুজিত সূত্রধর মাসুম-কে আশ^স্ত করে বিষয়টি মিমাংসা করিয়া দিবে। গত ২২/০৬/২২ তারিখ সন্ধ্যার পর সুজিত সূত্রধরের দোকানে বসিয়া ঘটনার বিষয়ে মিমাংসা করার কথা ছিল। পূর্বের কথা অনুযায়ী ভিকটিম সুজিত সূত্রধর ও তাহার ছেলে সুজন সূত্রধর গত ২২/০৬/২০২২খ্রিঃ তারিখ অনুমান ১৯.৪৫ ঘটিকার সময় “সুজন টিম্বার ট্রের্ডাস এন্ড ফার্নিচার মার্ট নামীয় দোকানে অবস্থান করতেছিল। তখন বার্নিশ মিস্ত্রি মাসুম এর নেতৃত্বে অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জন আসামী “সুজন টিম্বার ট্রের্ডাস এন্ড ফার্নিচার মার্ট নামীয় দোকানে প্রবেশ করিয়া অতর্কিত হামলা করিয়া ভিকটিম সুজিত সূত্রধরকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ডান কানের নিচ হতে ডান চোয়াল হয়ে গলার বাম পার্শ্ব পর্যন্ত সাত ইঞ্চি পরিমান গভীর কাটা রক্তাক্ত জখম সহ শরীরের অন্যান্য অংশে জখম করে। তাহার ছেলে সুজন সূত্রধরকেও এলোপাথারী মারপিট করিয়া জখম করে। দোকানে থাকা এক কর্মচারী দিনা (৫৫)-কে মারপিট করিয়া গুরুতর আঘাত করতঃ আসামীরা ঘটনাস্থল হইতে পালিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন তাদেরকে হাসপাতালে নিয়া গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার ভিকটিম সূজিত সূত্রধরকে মৃত বলিয়া ঘোষনা করেন। প্রাথমিক ভাবে আরো জানা যায় যে, ভিকটিম সুুজিত সুত্রধর হাজীপুর ইউনিয়নের একজন সাবেক মেম্বার/প্যানেল চেয়ারম্যান ছিলেন। তাহার সাথে ব্যবসা প্রতিষ্টান এর জায়গা নিয়ে, নিবার্চন সংক্রান্তে ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পূর্ব হইতেই অনেকের সাথে বিরোধ চলিয়া আসিতেছিল। এইসব ঘটনায় জের ধরিয়া হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটে বলিয়া প্রাথমিকভাবে জানা যায়। উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে নরসিংদী মডেল থানার একটি টিম তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং আশেপাশের লোকজনকে ঘটনার বিষয়ে নিবিরভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তথ্য প্রযুক্তি ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ঘটনার পর পরই ঘটনার সাথে জড়িত মূল আসামী ১। মাসুম (২৬), পিতা-হযরত আলী, সাং-বুদিয়ামারা (দড়ি নবীপুর), থানা ও জেলা-নরসিংদী, ২। শিমুল মাহমুদ (২২), পিতা-ফজলুর রহমান, সাং-বুদিয়ামারা(দড়ি নবীপুর), থানা ও জেলা-নরসিংদী, ৩। সোহাগ মিয়া(২৩), পিতা-রহিম মিয়া, সাং-নবীপুর (বালুয়াকান্দি বাজার সংলগ্ন), থানা ও জেলা- নরসিংদীদেরকে গ্রেফতার করা হয়। ঘটনায় ব্যবহৃত রক্তমাখা ছুরি ও রক্তমাখা কাঠ উদ্ধার করা হয়। বাদীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

    বাংলাদেশ সময়: ৪:০২ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন ২০২২

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ