• শিরোনাম

    গাজীপুরে তিন পুজা মণ্ডপে ভাংচুর

    খোরশেদ আলম | শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১ | পড়া হয়েছে 65 বার

    গাজীপুরে তিন পুজা মণ্ডপে ভাংচুর
    apps

     গাজীপুরের কাশিমপুর থানাধীন এলাকায় কুমিল্লার ঘটনার জেরে তিনটি মন্দির ও পূজা মণ্ডপে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘঠেছে। বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) সকালে কাশিমপুরে শুভোলদাসের পারিবারিক পূজা মণ্ডপে প্রথম হামলা ও ভাংচুর চালায় দূর্বৃত্তরা। পরে পালপাড়া দূর্গামন্দীর এবং নামা বাজার শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দিরে হামলা ও ভাংচুর চালায় দূর্বৃত্তরা। এঘটনায় সকালেই ২০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। শুভোলদাসের শ্যালক মিঠু চন্দ্র দাস বলেন,প্রায় দেড় থেকে দুইশ লোক আক্রমণ করে পূজা মণ্ডপে। তিনি বলেন, আমরা দেখেও ভয়ে কিছু বলতে পারিনি। তখন কোন পুলিশ বা আনাসার সদস্য ছিলোনা। তিন বছর যাবৎ আমরা পূজা উৎসব পালন করে আসছি। কিন্তু এমন ঘটনা কখনও ঘঠেনি। পালপাড়া দূর্গামন্দীর সভাপতি পরিমল পাল বলেন, সকাল ৭ টা সময় ৫০ জন পূজা মণ্ডপে হামলা ও ভাংচুর চালায়। এসময় দান বাক্সে থাকা নগদ ৩৬ হাজার। টাকা এবং মা দূর্গা, লক্ষী, স্বরশ্বতী গায়ে থাকা স্বর্ণলংকার লুটকরে নিয়ে যায় দূর্বৃত্তরা। তিনি অভিযোগ করে বলেন,যদি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা প্রতিটি মন্দিরে ডিউটিতে থাকতো তাহলে এমন ঘটনা ঘটতোনা। শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দির সভাপতি বাবুল কুমার রুদ্র বলেন,খণ্ড খণ্ড ভাবে দূর্বৃত্তরা এসে হামলা চালায়। এঘটনায় আমাদের পূজা মণ্ডপের ৫ জন আহত হয়। তিনি বলেন, মা দূর্গা, লক্ষী, স্বরশ্বতী গায়ে থাকা স্বর্ণের টিকলি,কানের দুল,নাক ফুল এবং নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এসময় শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দিরের পক্ষ থেকে এই হামলার সাথে জড়িত সবাইকে দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবী জানান। এদিকে মন্দিরে হামলা ও ভাংচুরের খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, পুলিশ কমিশনার লুৎফুল কবীর এবং জেলা প্রসাশক এস.এম তরিকুল ইসলাম গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি) কমিশনার লুৎফুল কবীর জানান এ ঘটনায় ২০ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গাসিক মেয়র মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন,মুসলমান এবং হিন্দুদের মধ্যে দাঙ্গা লাগানোর পরিকল্পনা করছে। দুস্কৃতিকারিরা এবং আমাদের প্রশাসনকে দূর্বল করার জন্য কাজটি করেছে। যারা আগে এসে ভাংচুর করেছে তাদের মধ্যে অনেককে আটক করেছে পুলিশ। এসময় তিনি বলেন, কারা এর মদদাতা এবং পিছনে থেকে কলকাঠি নাড়ছে প্রশাসনের মাধ্যমে খুব দ্রুত জানা যাবে। তিনি আরো বলেন,আমাদের এখানে ধর্ম নিয়ে কোন বাড়াবাড়ি নেই। যে যারযার ধর্ম পবিত্রতা রক্ষা করে পালন করবে। গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এস.এম তরিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, কোনো মতেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে দেয়া হবে না। অন্যায়কারীদেরকে শাস্তির আওতায় আনা হবে।

    বাংলাদেশ সময়: ৫:৩৬ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১

    dainikbanglarnabokantha.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ